Tuesday, 19 Jun 2018
সর্বশেষ খবর
 

ক্রিকেট বিশ্বকে চমকে দেবে বাংলাদেশ : কপিল দেব



ক্রিকেট বিশ্বকে চমকে দেবে বাংলাদেশ : কপিল দেব

০১ এপ্রিল ২০১৬: টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আসর থেকে বাংলাদেশকে বেশ হতাশ হয়ে ফিরতে হলেও ভারতের ক্রিকেট কিংবদন্তি কপিল দেব কিন্তু মনে করছেন এই দলটা আগামীতে সবাইকে চমকে দেবে।

পুরোপুরি স্পিন-নির্ভর বোলিং আক্রমণ থেকে তারা যেভাবে ফাস্ট বোলিংকে তাদের দলের বড় অস্ত্র করে তুলেছে, তার তারিফ করেছেন ভারতের বিশ্বকাপজয়ী দলের এই অধিনায়ক।

বিবিসি বাংলাকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে ভারতের বিশ্বকাপজয়ী এই সাবেক অধিনায়ক আরো বলেছেন, বাংলাদেশ দলে দুর্দান্ত কিছু অ্যাথলেট আছে, এখন তাদের চাই শুধু আরেকটু পরিণতি!

এমনকি বেঙ্গালুরুতে ভারতের কাছে বাংলাদেশের অবিশ্বাস্য হারের ব্যাখ্যাও দিয়েছেন তিনি। বিবিসি বাংলার সাংবাদিকের কাছে কপিল দেব নিশ্চিত করেন, বাংলাদেশ কখনো বেঙ্গালুরুর মতো ওভাবে আর হারবে না।

কপিল দেব বলেন, ভীষণ উন্নতি করেছে ওরা (বাংলাদেশ ক্রিকেট দল), এখন ওদের শুধু আরো ম্যাচিওরড হয়ে উঠতে হবে। বাংলাদেশ দলের যে জিনিসটা আমার সবচেয়ে ভালো লাগে, তা হলো মাত্র দশ-পনেরো বছর আগেও স্পিনাররাই ছিল তাদের একমাত্র ভরসা। আর এখন দেখুন, ঢাকার এশিয়া কাপে ওরা কী দারুণ সিমিং ট্র্যাক বানাচ্ছে আর সেখানে ওদের ফাস্ট বোলাররা কাঁপিয়ে দিচ্ছে।

‘ফাস্ট বোলাররা এখন ওদের (বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের) বড় শক্তি, এবং সেটা ভারতের ফাস্ট বোলিং অ্যাটাকের চেয়েও ভালো। এটা তো আপনাকে সমীহ করতেই হবে।’  যোগ করেন কপিল দেব।

দেড় দশক আগে যখন বাংলাদেশ আইসিসির পূর্ণ সদস্যপদ পায়, তারপর প্রথম কয়েক বছর বাংলাদেশের পারফরম্যান্স নিয়ে কম সমালোচনা হয়নি।

কপিল দেব কিন্তু মনে করেন, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মানিয়ে নিতে এই সময়টা তাদের দরকার ছিল এবং এখনকার বাংলাদেশ দলটার আত্মবিশ্বাসই আলাদা।

কপিল দেব বলেন, ইদানীংকালে তাদের যেভাবে আত্মবিশ্বাসে টগবগ করতে দেখছি সেটা প্রায় অবিশ্বাস্য। এই একই জিনিস কিন্তু শ্রীলঙ্কার ক্ষেত্রেও ঘটেছিল – টেস্ট মর্যাদা পাওয়ার পর দলটা যেভাবে দ্রুত ঘুরে দাঁড়িয়েছিল তা ভাবাই যায়নি।

অবশ্য বাংলাদেশকে সে জায়গায় পৌঁছাতে অবশ্য আরো ভালো পারফর্ম করতে হবে বলে মন্তব্য করেন কপিল দেব। তিনি বলেণ, আমার বিশ্বাস সেটা সম্ভব – কারণ ক্রিকেট নিয়ে যে মাতামাতি ওখানে, আর বাঙালিরা তো পাগল আমি সব সময়ই বলি।

বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়দের প্রশংসা করে কপিল দেব বলেন, বাংলাদেশ দলে কয়েকজন সাংঘাতিক অ্যাথলেট তো আমাকে একেবারে চমকে দিয়েছে। (সৌম্য) সরকার যেমন কয়েকটা ক্যাচ নিয়েছে, ভাবাই যায় না। দলে কিন্তু ওদের এমন ক্রিকেটারেরই প্রয়োজন – শুধু বাইরের নানা দেশের সিনিয়র ক্রিকেটাররা এসে যদি ওদের ঠিকমতো পরামর্শ দিতে পারে তাহলে আর দেখতে হবে না!

কিন্তু এ রকম প্রতিভাবান একটা দল বেঙ্গালুরুতে তিন বলে দুই রান তুলতে না পেরে কীভাবে ভারতের কাছে হেরে গেল, এবারের ওয়ার্ল্ড টি-টোয়েন্টিতে এখনো সেটা সবচেয়ে বড় রহস্য। কপিল দেব অবশ্য ভেবে ভেবে এর একটা উত্তর বের করেছেন!

কপিল দেবের ব্যাখ্যা হলো, দেখুন, ও রকম পরিস্থিতিতে দশবারের মধ্যে নয়বারই যে কোনো দল জিতবে। এমননি আফগানিস্তানও। ফলে ভারত যদি শেষ পর্যন্ত এই টুর্নামেন্টে জেতে, তাহলে আমি বাংলাদেশকে একটা ফুলের তোড়া পাঠাতে চাই।

ব্যক্তিগতভাবে কপিলও বিশ্বের আরো নানা ক্রিকেট-পণ্ডিতের মতো বাংলাদেশের মুস্তাফিজুর রহমানের ভক্ত – যদিও তিনি ওর বোলিংয়ে আরো বৈচিত্র্য দেখতে চান।

ভারতের ক্রিকেট মহলে স্পষ্টবাদী ও অপ্রিয় কথা বলার জন্য পরিচিত কপিল সরাসরি আর একটা বলছেন – আগামী পাঁচ বছরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ডার্ক হর্স হিসেবে তাঁর বাজি হবে বাংলাদেশই!


সর্বশেষ খবর