English ছবি ভিডিও
Bangla Font Problem?
শেষ আপডেট 11:08 am
ঢাকা, [bangla_day] , [english_date] , [bangla_date]

মৃত্যুর আগের দিন সুশান্তের মোবাইল ব্যবহারে ছিল অস্বাভাবিকতা, খতিয়ে দেখছে সিবিআই

Facebooktwitterredditpinterestlinkedinmail
বার্তা16 অনলাইন September 16, 2020

মাদক যোগ থাকার কারণে গ্রেফতার হয়েছেন রিয়া চক্রবর্তী। কিন্তু সুশান্ত সিং রাজপুত এর মৃত্যুর ঘটনা ক্রমশ জটিল হচ্ছে। প্রথম থেকে জানা যাচ্ছিল অভিনেতা আত্মঘাতী হয়েছেন। তবে এই দাবি মানতে রাজি হননি অনেকেই। এই মৃত্যু আত্মহত্যা নাকি খুন তা নিয়ে চলছে জলঘোলা। তদন্তকারী সংস্থা গুলি সম্প্রতি এমন কিছু তথ্যের সম্মুখীন হয়েছে যা থেকে খুনের সম্ভাবনা পুরোপুরি উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না বলে তারা জানিয়েছেন।

সিবিআই সূত্রে জানা যাচ্ছে যে মৃত্যুর আগের দিন সুশান্তের মোবাইল ফোন যেভাবে ব্যবহার করা হয়েছে তা বেশ সন্দেহজনক। কিছু অস্বাভাবিকতা তার মধ্যে দেখা গিয়েছে। সর্ব ভারতীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস নাও এর প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে।

এই মুহূর্তে ঘটনার তদন্ত করছে সিবিআই, এনসিবি এবং ইডি। রিয়া চক্রবর্তী ছাড়াও দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে সুশান্ত সিং রাজপুতের অন্যান্য হাউস স্টাফদের। প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে তদন্তকারী সংস্থা একটি বিষয়ের উপর বিশেষ নজর দিচ্ছে। সুশান্তের রাঁধুনি নীরজ জানিয়েছেন যে মৃত্যুর দিন সকালে এক গ্লাস জুস খেয়ে ছিলেন অভিনেতা। কিন্তু কেন, এই নিয়ে সন্দেহ তৈরি হয়েছে।

ময়না তদন্ত রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে তাঁর ব্লাডার খালি ছিল। দীপেশ সাওয়ান্ট জানিয়েছেন সকাল ১০.৩০ টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত তিনি দরজায় নক করছিলেন। এছাড়াও আরও একটি বিষয় সামনে এসেছে। জানা যাচ্ছে সুশান্তের একটি দামি ঘড়ি পাওয়া যাচ্ছে না। ঘড়িটির দাম ছিল ১৪ লক্ষ টাকা। সেটি তাঁর ঘরের ড্রয়ারে ছিল। প্রশ্ন উঠছে মৃত্যুর দিন সুশান্তের বাড়িতে পৌঁছলে কেন পরিবারের সদস্যদের হাতে বাড়ির চাবি দেওয়া হয়নি।

জানা যাচ্ছে যে সুশান্তের বাড়ির লোকজন যখন এই দুর্ঘটনার খবর শুনে অভিনেতার বাড়িতে পৌঁছেছিলেন তখন তাঁরা দেখেন যে সুশান্তের বাড়ির অন্যান্যরা কেউ রান্না করছে, আবার কেউ খেতে বসার জন্য প্রস্তুত হচ্ছে। এই দৃশ্য দেখে তাঁরা নাকি বেশ অবাক হয়েছিলেন বলে প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে।

১৩ জুন থেকে নাকি চেষ্টা করেও সুশান্ত সিং রাজপুত তাঁর পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেননি। এমনকি প্রতিবেশীদের থেকে জানা যাচ্ছে যে সেই রাতে সুশান্তের ঘরের আলো নিভে গিয়েছিল ১০.৩০ টায়। কিন্তু অন্যান্য দিন সাধারণত তার ঘুমোতে ঘুমোতে ভোর ৪টে বেজে যেত। তাই সন্দেহ দানা বেঁধেছে। বর্তমানে তদন্তকারী সংস্থা গুলি অপেক্ষা করে আছে AIIMS এর রিপোর্টের। ১৭ সেপ্টেম্বর এই রিপোর্ট আসবে।


জনপ্রিয় বিষয় সমূহ: